হিজাবে ঢাকা চুলের যত্ন নেয়ার সঠিক পদ্ধতি জেনে নিন

পর্দা ও ফ্যাশন দু’দিক রক্ষা করে হিজাব পরা নারীদের সংখ্যা বর্তমানে কম নয়। অফিস করা, সন্তানদের স্কুল-কলেজে আনা নেওয়াসহ নানা কারণে ঘরের বাইরে অনেক নারী দীর্ঘ সময় স্কার্ফ দিয়ে মাথা ঢেকে রাখেন। কিন্তু সঠিকভাবে যত্ন না নিয়ে লম্বা সময় হিজাব পরে থাকা নারীদের চুলে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। এমনিতেই গরমের এই সময়ে ঘেমে চুলের গোড়া চিটচিটে হয়ে থাকে। এতে খুশকি, চুল রুক্ষ হওয়া, পড়ে যাওয়াসহ নানা সমস্যায় নারীরা কম-বেশি ভোগেন। হিজাব পরা নারীদের এই সমস্যা আরো বেশি। তাই গ্রীষ্মের তাপদাহের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে হিজাবে ঢাকা চুল রক্ষায় প্রয়োজন বাড়তি যত্ন।

মিউনি’স ব্রাইডালের রূপ বিশেষজ্ঞ তানজিনা শারমিন মিউনি বলেন, গ্রীষ্মকালে দীর্ঘ সময় হিজাব পরার কারণে মাথার ত্বক ঘেমে চুলের গোড়ায় ব্যাকটেরিয়া ও ফাঙ্গাস সৃষ্টি হতে পারে। এতে মাথার ত্বক চিটচিটে এবং চুলকানির সৃষ্টি হয়। এসব সমস্যা সমাধানে সবচেয়ে বেশি জরুরি চুল পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা। এজন্য গরমের সময় প্রয়োজনে প্রতিদিন চুলে শ্যাম্পু করতে হবে। ক্ষতিকর কেমিক্যাল কম আছে এমন কোনো শ্যাম্পু দিয়ে চুল পরিষ্কার করতে হবে। মাথার ত্বক ও চুলের পুষ্টির জন্য শ্যাম্পু করার আগে চুলে হালকা গরম তেল ম্যাসাজ করা ভালো বলেন মিউনি। এছাড়া অনেকে গোসলের পর চুল পুরোপুরি না শুকিয়েই হিজাব বেঁধে ফেলেন এবং দীর্ঘ সময় এ অবস্থাতেই থাকেন। ফলে খুশকির সমস্যা দেখা দেয়। তাই কখনোই চুল না শুকিয়ে হিজাব পরা উচিত নয়। সবসময় চুল বাতাসে পুরোপুরিভাবে শুকিয়ে নিতে হবে। এক্ষেত্রে একান্ত প্রয়োজন না হলে হেয়ার ড্রায়ারের ব্যবহার এড়ানো ভালো।

কলেজ পড়া অবস্থায় থেকে হিজাব পড়তেন বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান পড়ুয়া শিক্ষার্থী সোনিয়া আক্তার। তিনি বলেন, নিত্য প্রয়োজনেই বাইরে বের হতে হয়। আর ঢাকার রাস্তায় ধুলাবালিতে পরিপূর্ণ। বিশেষ করে গ্রীষ্মের এই সময়ে মাথায় হিজাব দিয়ে ঢেকে রাখলে রাস্তার ধুলাবালি থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। হিজাব পরিহিত নারীদের চুল খুব শক্ত করে বাধা যাবে না। এতে চুল গোড়া থেকে উঠে আসে। হার্ড রাবার ব্যান্ডওচুলের জন্য ক্ষতিকর। অতিরিক্ত ববি পিন/ ক্লিপ যাতে ব্যবহার করা না হয় সেদিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে। এছাড়া মাথার ত্বকে ও চুলে অক্সিজেন প্রবেশের সুবিধার্থে গরমের সময় নরম সুতি কাপড়ের স্কার্ফ ব্যবহার করা ভালো। চুলের স্বাস্থ্য রক্ষায় সপ্তাহে একদিন একটি পাকা কলা, একটি ডিম এবং তিন টেবিল চামচ টকদই একসঙ্গে মিশিয়ে পুরো চুলে লাগিয়ে দু’ঘন্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলতে হবে। এতে চুল নরম, সিল্কি ও গোড়া শক্ত হয়। চুলের খুসকি দূর করতে মেহেদির সঙ্গে পেঁপে ও লেবুর রসের মিশ্রণ উপকারী। কলা, মধু, লেবুর রস ও দুধের মিশ্রণ রুক্ষ চুলকে সজীব করে। পেঁপে, ডিম, মধু, পাকা কলা, চায়ের লিকার চুলের কন্ডিশনারের কাজ করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *